টেকনাফ l টেকনাফ কোন নদীর তীরে অবস্থিত?

টেকনাফ
টেকনাফ

আসসালামু আলাইকুম আশা করি সকলে ভালো আছেন। আজ আমরা আলোচনা করব টেকনাফ এর দর্শনীয় স্থানসমূহ নিয়ে। আশা করি সঙ্গেই থাকবেন। টেকনাফ বাংলাদেশের কক্সবাজার জেলার একটি উপজেলা। এটি বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিণের উপজেলা। টেকনাফ থানা গঠিত হয় ১৯৩০ সালে এবং থানাটি ১৯৮৩ সালে উপজেলায় পরিণত হয়। এ উপজেলায় বর্তমানে ১ টি পৌরসভা ও ৬ টি ইউনিয়ন রয়েছে।

টেকনাফ কোন নদীর তীরে অবস্থিত

টেকনাফ নাফ নদীর তীরে অবস্থিত কক্সবাজার জেলার একটি উপজেলা। বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিণ-পূর্ব সীমান্তে এই উপজেলার অবস্থান। টেকনাফ উপজেলার আয়তন ৩৮৮.৬৮ বর্গকিলোমিটার। টেকনাফ উপজেলা কক্সবাজার জেলার দক্ষিণে, ২০°২৩’ এবং ২১°০৯’ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯২°০৫’ এবং ৯২°২৩’ পূর্ব দ্রাঘিমাংশের মধ্যে অবস্থিত। কক্সবাজার জেলা সদর থেকে এ উপজেলার দূরত্ব প্রায় ৮২ কিলোমিটার এর মতো।

টেকনাফ উপজেলা পর্যটন স্থান:

  • সেন্ট মার্টিন দ্বীপ; বাংলাদেশের একমাত্র প্রবাল দ্বীপ।
  • ছেঁড়া দ্বীপ
  • শাহপরী দ্বীপ
  • তুংনঙ্গা চূড়া
  • টেকনাফ বন্যপ্রাণী অভয়ারণ্য
  • সাবরাং ট্যুরিস্ট পার্ক
  • টেকনাফ সমুদ্র সৈকত
  • মাথিনের কূপ
  • বাংলাদেশ-মিয়ানমার ট্রানজিট ডক
  • শীলখালী এভারগ্রিন রোরিং গার্ডেন
  • শামলাপুর সৈকত
  • মারিশবনিয়া সমুদ্র সৈকত
  • টেকনাফ সমুদ্র সৈকত

শাহপরীর দ্বীপ, টেকনাফ

বরাং ইউনিয়নের গ্রাম। একসময় এটি একটি দ্বীপ হলেও জলবায়ু পরিবর্তনের কারণে এটি ধীরে ধীরে মূল ভূখণ্ডের সাথে মিশে গেছে। শাহসুজার নামের “শাহ” এবং তার স্ত্রীর নাম পরীবানু থেকে “পরী” শব্দ দুটির সমন্বয়ে দ্বীপটির নাম শাহপরী দ্বীপ রাখা হয়েছে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে। এটি শাহ ফরিদ আউলিয়ার নামে নামকরণ করা হয়েছে বলেও জানা যায়। দ্বীপটি বর্ষা সাপেক্ষে। দ্বীপের প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের মধ্যে রয়েছে তিনটি সৈকত। তবে ওইসব সৈকতে কোনো লাইফগার্ড নেই, তাই জোয়ারের কোনো সংকেত নেই। তাই নিজেদের নিরাপত্তার জন্য তীর্থযাত্রীদের ভাটার সময় জেনে সমুদ্রে যাওয়ার জন্য অনুরোধ করা হচ্ছে, কারণ ভাটা সমুদ্রে যাওয়ার অনুপযুক্ত সময়। দ্বীপের মাছ ধরার জায়গার পাশেই রয়েছে দিগন্তজোড়া লবণের প্রান্তর (লবণ ক্ষেত)। এখানে, লবণের ক্ষেতগুলির পাশে, ছোট বাঁকা আঁকা নদীগুলি যেখানে জোয়ারের সময় সমুদ্রের জল বেড়ে যায় এবং মাছের সন্ধানে বেড়াতে আসা বগলা, সারস এবং পাখিতে পূর্ণ হয়। এই দ্বীপ থেকে মিয়ানমারের মংডু প্রদেশ দেখা যায়। পর্যটকরা মাছ ধরার নৌকায় করে সেন্ট মার্টিন দ্বীপে যেতে পারেন।

সেন্ট মার্টিন এবং ছেঁড়া দ্বীপ, টেকনাফ

টেকনাফ থেকে ৫ কিলোমিটার দক্ষিণে শেষ খণ্ড জমি। দ্বীপটি টেকনাফ থেকে সামান্য বিচ্ছিন্ন হওয়ায় এই দ্বীপপুঞ্জটিকে “চেরা দ্বীপ” বলা হয়। উচ্চ জোয়ারের সময় দ্বীপের এক তৃতীয়াংশ সমুদ্রে নিমজ্জিত হয় এবং সমুদ্রের নীল ঢেউ যখন পাথরের সাথে আছড়ে পড়ে, তখন একটি মনোমুগ্ধকর দৃশ্য নেমে আসে। দ্বীপটি বেশ রুক্ষ, পাথর ও নারকেল গাছে ভরা এবং বিভিন্ন ধরনের কেওড়া গাছে ঘেরা। এই দ্বীপে একটি মাত্র পরিবার বাস করে। বিভিন্ন প্রজাতির জীববৈচিত্র্য এখানে পাওয়া গেছে। যার মধ্যে ৪ প্রজাতির উভচর, ১৩০ প্রজাতির পাখি, ২০ প্রজাতির সামুদ্রিক স্তন্যপায়ী এই বিচ্ছিন্ন দ্বীপে বাস করে। চাঁদনী রাতে চেরা দ্বীপের অপরূপ সৌন্দর্যে যে কোনো পর্যটকের মন ভরে যাবে। দ্বীপের শীর্ষে পূর্ণিমার সময় চাঁদের আলো ক্যাম্পিংয়ের জাদুকরী এবং মোহনীয় পরিবেশে পর্যটকরা আকৃষ্ট হয়।

তৈঙ্গা চুড়া, টেকনাফ

টেকনাফ থেকে ১৫ কিলোমিটার উত্তরে গেম রিজার্ভের সর্বোচ্চ চূড়া হলো টাইঙ্গা চুড়া। গেম রিজার্ভটি বাংলাদেশের তৃতীয় বৃহত্তম সংরক্ষিত বনাঞ্চল এবং নাফ নদী এর মধ্য দিয়ে পূর্বে প্রবাহিত হয়েছে, অবিলম্বে পশ্চিমে মায়ানমার এবং বঙ্গোপসাগরের সীমানা। তাইঙ্গা চুরা অভয়ারণ্য সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ১০০০ ফুট উচ্চতায় অবস্থিত। এই সংরক্ষিত বনের আয়তন ১১,১২০ হেক্টর। তাইঙ্গা চুরা বনের গুরুত্বপূর্ণ গাছ হল চাপালিশ, গর্জন, উরাম, অশোক, জলপাই ইত্যাদি। বনে ২৯০ টি বিভিন্ন প্রজাতির উদ্ভিদ, ১৩০ প্রজাতির স্তন্যপায়ী প্রাণী, সরীসৃপ, উভচর এবং ২৮৫ প্রজাতির পাখি রয়েছে। বাংলাদেশের বন্য এশীয় হাতির বনের এক-তৃতীয়াংশও বিপন্ন বন্য কুকুর, ভাল্লুক, সাম্বার হরিণ, উরুক্কা বিড়াল, সজারু ইত্যাদির আবাসস্থল। চাকমা, মারমা এবং রাখাইন উপজাতিরা বনের চারপাশে বাস করে। আর বিস্ময়কর তাইঙ্গা ঝিরি পাথুরে পাহাড়ের উপর দিয়ে ধাপে ধাপে বয়ে চলেছে।

কালো রাজা শুড়ঙ্গ, টেকনাফ

এটি একটি ঐতিহাসিক দার্শনিক সুড়ঙ্গ যা কক্সবাজারের রামু উপজেলার উখিয়াঘোনা পাহাড়ের ঝিরি বা পাহাড়ি স্রোত পার হলেই দেখা যায়। যার আরেকটি নাম “কানা রাজার শুরাঙ্গ”। এটি একটি ৩৫০ ফুট দীর্ঘ টানেল, যেখানে ৭০ ফুট হাঁটার পর আপনাকে হামাগুড়ি দিতে হবে। একটি বড় পুরাতন রংশালা বা বসার ঘর আছে, যার দেয়ালে সাজানো অনেক চিত্রকর্ম। টানেলের মধ্যে একটু এগিয়ে গেলে চারটি টানেল দেখা যায়। এর মধ্যে লুকিয়ে আছে অনেক পরিচিত রহস্য। “কক্সবাজারের ইতিহাস” নামে একটি বইয়ে এই সুড়ঙ্গের বর্ণনা রয়েছে।

মাথিনের কূপ, টেকনাফ

টেকনাফ থানা চত্বরে অবস্থিত, যাকে পুলিশ প্রশাসন ভালোবাসা ও ত্যাগের প্রতীক হিসেবে সংরক্ষণ করে রেখেছে। প্রায় ৮০ বছর আগে সুদর্শন পুলিশ সদস্য ধীরাজ ভট্টাচার্যকে টেকনাফ থানায় বদলি করা হয়। একদিন সকালে মৃদু গোঙানির আওয়াজ শুনে তিনি থানার বারান্দায় গিয়ে দেখলেন বেশ কিছু রাখাইন মেয়ে কুয়া থেকে পানি তুলতে আসছে এবং অট্টহাসিতে প্রাঙ্গণ ভরিয়ে দিচ্ছে। সেই রাখাইন মেয়েদের মধ্যে ধীরজ টেকনাফের এক জমিদারের একমাত্র মেয়ে মাথিনকে দেখেছিল। প্রতিদিন মাথিনের কাছ থেকে পানি আনতে আসায় ধীরে ধীরে ধীরাজ ও মাথিনের প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। তারা দুজনেই বিয়ে করার সিদ্ধান্ত নেন। এদিকে কলকাতা থেকে ধীরাজের বাবার চিঠি আসে তাকে কলকাতায় ফিরে যেতে বলে। জান ধীরাজ মাথিনকে না জানিয়ে কলকাতায় ফিরে আসেন। এদিকে ধীরাজকে হারানোর বেদনায় দারিদ্র্যের মধ্যে থাকা অবস্থায় ১৪/১৫ বছর বয়সী মাথিন থানায় ভালোভাবে আত্মত্যাগ করে। তাই আজও এই “মাথিনের কুয়া” মাথিনের অমর ভালোবাসার সাক্ষী।

শাপলাপুর সমুদ্র সৈকত

অধিকাংশ সময় জনমানবহীন। টেকনাফ শহর ছেড়ে ১০ কিমি শক্তিশালী শীলকালী বনের মধ্য দিয়ে মেরিন ড্রাইভ ভ্রমণের পরে, আপনি এই নির্জন সমুদ্র সৈকতে পৌঁছান। অপূর্ব পশ্চিমে সমুদ্র এবং পূর্বে পাহাড় সহ একটি আকর্ষণীয় পর্যটন গন্তব্য। এই সমুদ্র সৈকতের তীরে ছোট এবং মাঝারি আকারের ঝাড়বাতি বন এবং সমুদ্রের নীল জলে পাথুরে সারি সারি রয়েছে। সমুদ্র সৈকতটা বেশ চওড়া আর পাথরে ঘেরা, আর পাথরের ফাঁকে জমে থাকা সমুদ্রের জলে ছোট ছোট লাল কাঁকড়া, মাছ, শামুক, ঝিনুক আর কি আছে! লাল কাঁকড়ার দল খুব ভোরে বা বিকেলে সৈকতে আসে। সৈকত ধরে একটু এগোতেই নোঙর করা নৌকার সারি। সূর্যাস্তের আগের রাতে, অস্তগামী সূর্যের ছায়া এবং সমুদ্রের জল একটি সুন্দর দৃশ্য তৈরি করে যা পর্যটকদের দৃষ্টি আকর্ষণ করে। যারা নির্জনতা পছন্দ করেন তাদের জন্য শাপলাপুর সমুদ্র সৈকত একটি আদর্শ স্থান।

টেকনাফ মিয়ানমার পরিবহন জেটি

টেকনাফ মিয়ানমার পরিবহন জেটি পর্যটক ও স্থানীয়দের নিরাপত্তার জন্য জাহাজ, নৌকা, ট্রলার ইত্যাদি গ্রহণের জন্য ডিজাইন করা হয়েছে। রোহিঙ্গাদের অবৈধ অনুপ্রবেশ নিয়ন্ত্রণে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। ঘাটে স্থানীয় ও তীর্থযাত্রীদের আনাগোনা চোখে পড়ার মতো। জেটিটি নাফ নদীর মাঝখানে প্রবেশযোগ্য, এটি একরনের একটি পর্যটন আকর্ষণ। স্বল্পমেয়াদী, কম খরচে বিনোদনের জন্য জেটি ঘাট হল উপযুক্ত স্থান। এখানে কিছু রেস্তোরাঁ আছে, জেটির দুপাশে কিছু ছাতা ও চেয়ার রাখা হয়েছে হাঁটার জন্য বসে প্রকৃতি উপভোগ করার জন্য। দর্শনার্থীরা ঘাটে বসে চিংড়ি শিকারীরা তাদের ধরতে তাদের নিজস্ব কৌশল ব্যবহার করতে দেখতে পারে।

নাফ নদী

বাংলাদেশ ও মায়ানমারের সীমান্ত নদী। নাফ নদীর ডান তীরে বাংলাদেশ এবং বাম তীরে মায়ানমার অবস্থিত। এই নদীতে বার্মার সীমান্ত পাহারা দেয় সীমান্তরক্ষীরা। এই নদীর সর্বোচ্চ গভীরতা প্রায় ৪২০ ফুট। নদীটির দৈর্ঘ্য ৬৩ কিলোমিটার এবং প্রস্থ ১৩৬৪ মিটার। নাফ নদী আরাকান এবং অন্যান্য দক্ষিণ-পূর্ব পাহাড় থেকে উৎপন্ন হয়েছে এবং বঙ্গোপসাগরের সম্প্রসারণ হিসেবে বঙ্গোপসাগরে মিলিত হয়েছে। তাই নদীর পানি লবণাক্ত। টেকনাফ উপজেলার ১৫ হাজার পরিবার জীবিকা নির্বাহ করে নাফ নদীর ওপর। এই নদী পার হয়ে সান মার্টিন দ্বীপে যান। নদীতে নৌকা থেকে মাছ ধরছেন জেলেরা। দর্শনার্থীরা নদী ট্রলারে একটি উত্তেজনাপূর্ণ যাত্রার অভিজ্ঞতা নিতে পারেন।

টেকনাফ উপজেলা

টেকনাফ উপজেলা (কক্সবাজার জেলা) আয়তন: ৩৮৮.৬৬ বর্গ কিমি। অবস্থান: ২০°২৩’ থেকে২১°০৯ উত্তর অক্ষাংশ এবং ৯২°০৫’ থেকে ৯২°২৩’ পূর্ব দ্রাঘিমাংশ। সীমানা: উখিয়া উপজেলার উত্তরে, দক্ষিণে বঙ্গোপসাগর, পূর্বে মায়ানমারের আরাকান রাজ্য, পশ্চিমে বঙ্গোপসাগর। টেকনাফ উপজেলা কক্সবাজার জেলা সদর থেকে ৮৬ কিলোমিটার দক্ষিণে এবং বাংলাদেশের সর্ব দক্ষিণ-পূর্ব সীমান্তে অবস্থিত। উত্তরে সুউচ্চ পাহাড় ও সবুজ গাছপালা সুশোভিত উখিয়া উপজেলা, দক্ষিণ-পশ্চিমে বঙ্গোপসাগর, পূর্বে নাফ নদী ও মিয়ানমার।

জনসংখ্যা ২৬৪৩৮৯; পুরুষ ১৩৩১০৬, মহিলা ১৩১২৮৩। মুসলিম ২৫৮২৪৫, হিন্দু ২৯৬৭, বৌদ্ধ ৩০৮৯, খ্রিস্টান ৯ এবং অন্যান্য ৭৯ জন। ১৯৩০ সালে টেকনাফ থানা প্রশাসন গঠিত হয় এবং ১৯৮৩ সালে থানা উপজেলায় পরিণত হয়।

পরিশেষে

আশা করি আপনারা আপনাদের কর্ম ব্যস্ত জীবনের ক্লান্তি দূর করতে টেকনাফ এর দর্শনীয় স্থানসমূহ দেখার জন্য ঘুরে আসবেন। পুরো আর্টিকেল সাথে থেকে পড়ার জন্য আপনাদেরকে অসংখ্য ধন্যবাদ।

Comments

No comments yet. Why don’t you start the discussion?

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *